জীবনে প্রথম বার সেক্স করার সময় কি করবেন? জেনে নিন

আজকাল যদিও ছেলে/মেয়েরা আধুনিকতার বদৌলতে বিবাহের পূর্বেই সেক্স/ সহবাস, শারীরিক মিলন/ যৌন মিলন বিষয়ে অনেক ঘাটাঘাটি করতে অবস্থ তথাপি বিবাহের পর বাস্তব জীবন নিয়ে তারা নানা প্রকার টেনসনে ভোগে থাকেন।আমাদের অবিবাহিত রোগীদের সাথে কথাবার্তার সময় এ বিষয়টা একেবারেই স্পষ্ট। যদিও বিষয়গুলো বিয়ের কিছুদিন পর যখন স্বামী স্ত্রী একে অপরকে বুঝতে পারে তখন থেকেই ঠিক হতে থাকে। তারপরও এখানে প্রথম সেক্স বিষয়ে কিছু পরামর্শ দেয়া হলো :

প্রথম সহবাস/সেক্স করার ক্ষেত্রে দরকারী কিছু টিপস:সহবাস/সেক্সের আগে অবশ্যই অজু বা গোসল করে নিবেন। পারফিউম ব্যবহারকরতে পারেন । এটা কনফিডেন্স বাড়াবে।
আপনি মেয়ে হলে প্রস্তুত থাকুন। প্রথম সেক্সে আপনার সতীচ্ছদ পর্দা ছিঁড়ে যাবে এবং সামান্য রক্তপাত হবে। তাই সাথে অবশ্যই টিস্যু বা টুকরো কাপড় রাখুন। এসময় কিছুটা ব্যথা পাবেন। ভয় পাবার কিছু নেই। টেনশন করবেন না। আপনার যোনী ভালোমত পিচ্ছিল না হলে বেশ ব্যথা পাবেন। তাই সাবধান।

ছেলেদের বলছি, যোনীতে আপনার পেনিস ঢুকানোর আগে আপনার পার্টনার মানসিকভাবে প্রস্তুত কি না জেনে নিন। প্রথম বার ঢুকানোর সময় খুব আস্তে আস্তে করা ভালো। প্রথমে ভালোমত ঢুকবে না। পর্দা ছেঁড়ার পর যোনীপথ ফ্রী হবে।
তাই প্রথমদিকে না ঢুকলে ভুলেও জোর করে ঢুকাতে যাবেন না। এতে আপনার পার্টনার মারাত্মক ব্যাথা পেতে পারে এবং যোনীর অভ্যন্তরে ছিঁড়ে প্রচন্ড রক্তপাত হতে পারে। আস্তে আস্তে কয়েকবার ঢুকালেই যোনীপথ ফ্রী হয়ে যাবে। তখন স্পীড বাড়ান।

দুজনেই কনফিডেন্ট থাকুন। আর অবশ্যই যৌনাঙ্গের চারপাশের অবাঞ্চিত চুল ক্লিন শেভ করুন। মেয়েরা হেয়ার রিমুভার ব্যবহার করতে পারেন।
সেক্স নিয়ে ১৫টা অজানা সত্যি তথ্য জেনে নিন১) ৩০ মিনিটের অ্যাকটিভ সেক্সের সময় আপনি ৩০০ ক্যালোরি খরচ করেন। যা যে কোনও কাজের থেকে বেশি।২) স্বাভাবিক অবস্থায় পুরুষাঙ্গের উচ্চতা থাকে ৩.৫ ইঞ্চি থেকে ৩.৭ ইঞ্চি। যৌনতার সময় তা বেড়ে হয় ৫ থেকে ৫.৭ ইঞ্চি।৩) বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সেক্স করেন গ্রিকরা।৪) সারাদিনে সারা বিশ্বে ১০ কোটি যৌন মিলনের ঘটনা ঘটে। এখন যখন আপনি এই লেখাটা পড়ছেন তখন বিশ্বের ৪ হাজার মানুষ সেক্সে ব্যস্ত।

৫) ২০০৫ সালে এক প্রেমিক যুগল দীর্ঘতম চুম্বনে বিশ্বরেকর্ড গড়েন। তারা ৩১ ঘণ্টা ৩০ মিনিট ৩০ সেকেন্ড ধরে একে অপরকে চুম্বন করেন।৬) বিশ্বের ২৫ শতাংশ দম্পতি যাদের বয়স ৭৫-এর উপরে তারা এখনও সেক্স করেন।৭) মানুষ ছাড়া ডলফিন আর বোনোবো শিম্পাঞ্জিরা তৃপ্তি বা সুখের জন্য সেক্স করেন।৮) আমরা কাউকে যৌন আর্কষক মনে করলে তাকে অন্য বাকিদের চেয়ে মিথ্যা কথা বলতে অসুবিধা হয়।৯) মানুষ ছাড়াও শুশুক আর মাছেরা Oral sex করে।১০) এক সমীক্ষায় প্রকাশ বিশ্বের ৫০ শতাংশ পুরুষ মনে করে তাদের যৌনাঙ্গ ছোট, অথচ ৮৫ শতাংশ মহিলা বলছেন, তাদের সঙ্গির যৌনাঙ্গের আকারে তারা খুশি।১১) গড়ে একজন মানুষ তার সারাজীবনে ২০ হাজার ১৬০ মিনিট সময় খরচ করে চুম্বন করে। মানে জীবনের প্রায় দু সপ্তাহ বা ৩৩৬ ঘণ্টা সময় যায় চুমুর জন্য।

১২) নিয়মিত সেক্স করলে শরীর ভাল থাকে। অনেক ছোটখাটো শারীরিক সমস্যা দূর হয়। মাথাব্যথা খুব তাড়াতাড়ি সেরে যায়।১৩) প্রতিদিন একটা আপেল মানুষের যৌন আয়ু অন্তত দেড় মাস বাড়িয়ে দেয়।১৪) আধুনিক সময়ে ৫ জনের মধ্যে ১জন সেক্সের জন্য ফোনের ব্যবহার করে।১৫) কালো মহিলা মাকড়সারা পুরুষদের সঙ্গে যৌন মিলনের পর তাদের খেয়ে ফেলে। একটা মহিলা মাকড়সা সারা দিনে ১৪জন পুরুষ মাকড়সাকে মেরে ফেলার ক্ষমতা রাখে।

আজকাল যদিও ছেলে/মেয়েরা আধুনিকতার বদৌলতে বিবাহের পূর্বেই সেক্স/ সহবাস, শারীরিক মিলন/ যৌন মিলন বিষয়ে অনেক ঘাটাঘাটি করতে অবস্থ তথাপি বিবাহের পর বাস্তব জীবন নিয়ে তারা নানা প্রকার টেনসনে ভোগে থাকেন।আমাদের অবিবাহিত রোগীদের সাথে কথাবার্তার সময় এ বিষয়টা একেবারেই স্পষ্ট। যদিও বিষয়গুলো বিয়ের কিছুদিন পর যখন স্বামী স্ত্রী একে অপরকে বুঝতে পারে তখন থেকেই ঠিক হতে থাকে। তারপরও এখানে প্রথম সেক্স বিষয়ে কিছু পরামর্শ দেয়া হলো :

প্রথম সহবাস/সেক্স করার ক্ষেত্রে দরকারী কিছু টিপস:সহবাস/সেক্সের আগে অবশ্যই অজু বা গোসল করে নিবেন। পারফিউম ব্যবহারকরতে পারেন । এটা কনফিডেন্স বাড়াবে।রাফ সেক্স বলতে কী বোঝায়? কীভাবে করবো রাফ সেক্স?আপনি মেয়ে হলে প্রস্তুত থাকুন। প্রথম সেক্সে আপনার সতীচ্ছদ পর্দা ছিঁড়ে যাবে এবং সামান্য রক্তপাত হবে। তাই সাথে অবশ্যই টিস্যু বা টুকরো কাপড় রাখুন। এসময় কিছুটা ব্যথা পাবেন। ভয় পাবার কিছু নেই। টেনশন করবেন না। আপনার যোনী ভালোমত পিচ্ছিল না হলে বেশ ব্যথা পাবেন। তাই সাবধান।ছেলেদের বলছি, যোনীতে আপনার পেনিস ঢুকানোর আগে আপনার পার্টনার মানসিকভাবে প্রস্তুত কি না জেনে নিন। প্রথম বার ঢুকানোর সময় খুব আস্তে আস্তে করা ভালো। প্রথমে ভালোমত ঢুকবে না। পর্দা ছেঁড়ার পর যোনীপথ ফ্রী হবে। তাই প্রথমদিকে না ঢুকলে ভুলেও জোর করে ঢুকাতে যাবেন না। এতে আপনার পার্টনার মারাত্মক ব্যাথা পেতে পারে এবং যোনীর অভ্যন্তরে ছিঁড়ে প্রচন্ড রক্তপাত হতে পারে। আস্তে আস্তে কয়েকবার ঢুকালেই যোনীপথ ফ্রী হয়ে যাবে। তখন স্পীড বাড়ান।দুজনেই কনফিডেন্ট থাকুন। আর অবশ্যই যৌনাঙ্গের চারপাশের অবাঞ্চিত চুল ক্লিন শেভ করুন। মেয়েরা হেয়ার রিমুভার ব্যবহার করতে পারেন।সেক্স নিয়ে ১৫টা অজানা সত্যি তথ্য জেনে নিন

১) ৩০ মিনিটের অ্যাকটিভ সেক্সের সময় আপনি ৩০০ ক্যালোরি খরচ করেন। যা যে কোনও কাজের থেকে বেশি।২) স্বাভাবিক অবস্থায় পুরুষাঙ্গের উচ্চতা থাকে ৩.৫ ইঞ্চি থেকে ৩.৭ ইঞ্চি। যৌনতার সময় তা বেড়ে হয় ৫ থেকে ৫.৭ ইঞ্চি।৩) বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সেক্স করেন গ্রিকরা।৪) সারাদিনে সারা বিশ্বে ১০ কোটি যৌন মিলনের ঘটনা ঘটে। এখন যখন আপনি এই লেখাটা পড়ছেন তখন বিশ্বের ৪ হাজার মানুষ সেক্সে ব্যস্ত।৫) ২০০৫ সালে এক প্রেমিক যুগল দীর্ঘতম চুম্বনে বিশ্বরেকর্ড গড়েন। তারা ৩১ ঘণ্টা ৩০ মিনিট ৩০ সেকেন্ড ধরে একে অপরকে চুম্বন করেন।

৬) বিশ্বের ২৫ শতাংশ দম্পতি যাদের বয়স ৭৫-এর উপরে তারা এখনও সেক্স করেন।৭) মানুষ ছাড়া ডলফিন আর বোনোবো শিম্পাঞ্জিরা তৃপ্তি বা সুখের জন্য সেক্স করেন।৮) আমরা কাউকে যৌন আর্কষক মনে করলে তাকে অন্য বাকিদের চেয়ে মিথ্যা কথা বলতে অসুবিধা হয়।৯) মানুষ ছাড়াও শুশুক আর মাছেরা Oral sex করে।১০) এক সমীক্ষায় প্রকাশ বিশ্বের ৫০ শতাংশ পুরুষ মনে করে তাদের যৌনাঙ্গ ছোট, অথচ ৮৫ শতাংশ মহিলা বলছেন, তাদের সঙ্গির যৌনাঙ্গের আকারে তারা খুশি।১১) গড়ে একজন মানুষ তার সারাজীবনে ২০ হাজার ১৬০ মিনিট সময় খরচ করে চুম্বন করে। মানে জীবনের প্রায় দু সপ্তাহ বা ৩৩৬ ঘণ্টা সময় যায় চুমুর জন্য।

১২) নিয়মিত সেক্স করলে শরীর ভাল থাকে। অনেক ছোটখাটো শারীরিক সমস্যা দূর হয়। মাথাব্যথা খুব তাড়াতাড়ি সেরে যায়।১৩) প্রতিদিন একটা আপেল মানুষের যৌন আয়ু অন্তত দেড় মাস বাড়িয়ে দেয়।১৪) আধুনিক সময়ে ৫ জনের মধ্যে ১জন সেক্সের জন্য ফোনের ব্যবহার করে।১৫) কালো মহিলা মাকড়সারা পুরুষদের সঙ্গে যৌন মিলনের পর তাদের খেয়ে ফেলে। একটা মহিলা মাকড়সা সারা দিনে ১৪জন পুরুষ মাকড়সাকে মেরে ফেলার ক্ষমতা রাখে।

সেক্স এর সময় বাড়ানোর উপায় …

যৌনশক্তি বাড়াতে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্পন্ন ঔষধি কৌশল এবং মনোবৈজ্ঞানিক চিকিৎসা এখন প্রায় সেকেলে হয়ে পড়েছে। আজকাল যৌনশক্তি বাড়াতে প্রাকৃতিক কামোদ্দীপক বা যৌনশক্তি বর্ধক খাদ্যই অনেক বেশি কার্যকরী হিসেবে বিবেচিত হয়। তাই বিবাহিত জীবনে যৌনতায় ফিট থাকতে হলে আপনাকে দৈনন্দিন খাবার দাবারের প্রতি পূর্ণ মনোযোগী হতে হবে। কারণ সুখী দাম্পত্য জীবনের জন্য স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ভালো বোঝাপড়া থাকার পাশাপাশি দরকার স্বাস্থ্যকর যৌন জীবন। অথচ প্রায়ই দেখা যায় যৌন সমস্যার কারনে সংসারে অশান্তি হয়, এমনকি বিচ্ছেদ পর্যন্ত হয়। তাই আগে থেকে সতর্ক থাকলেও এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি নাও হতে পারেন আপনি। আপনার যৌন শক্তি বৃদ্ধির জন্য কোন প্রকার ঔষধের প্রয়োজন নেই, তার জন্য দৈনন্দিন পুষ্টিকর খাবার দাবারই যথেষ্ট। আপনার খাবার মেনু তে নিয়মিত দুধ, ডিম এবং মধু রাখুন আর নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপন করুন, তাহলে যৌন দুর্বলতায় ভুগবেন না।

ডিম: যৌন দুর্বলতা দূর করতে ও যৌন উত্তেজনা বাড়াতে এক অসাধারণ খাবার দুধ। প্রতিদিন সকালে, না পারেন সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ১টি করে ডিম সিদ্ধ করে খান। এতে আপনার যৌন দুর্বলতার সমাধান হবে। দুধ: যেসব খাবারে বেশি পরিমাণ প্রাণিজ-ফ্যাট আছে এমন প্রাকৃতিক খাদ্য আপনার যৌনজীবনের উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চায়। কিন্তু আপনি যদি শরীরে সেক্স হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সবগুলোকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।মধু: যৌন দুর্বলতার সমাধানের মধুর গুণের কথা সবারই কম-বেশি জানা। তাই যৌন শক্তি বাড়াতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ১ গ্লাস গরম পানিতে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে পান করুন।

রসুন: যৌন সমস্যা থাকলে এখনই নিয়মিত রসুন খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। স্মরণাতীতকাল থেকেই নারী পুরুষ উভয়েরই যৌন উদ্দীপনা বাড়াতে এবং জননাঙ্গকে পূর্ণ সক্রিয় রাখতে রসুনের পুষ্টিগুণের কার্যকারিতা সর্বজনস্বীকৃত। রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা যৌন ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়।কফি: কফি আপনার যৌন ইচ্ছা বাড়ানোতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কফিতে যে ক্যাফেইন থাকে তা আপনার যৌনতার মুড কার্যকর রাখে।

জয়ফল: গবেষণায় দেখা গেছে, জয়ফল থেকে এক ধরনের কামোদ্দীপক যৌগ নিঃসৃত হয়। সাধারণভাবে এই যৌগটি স্নায়ুর কোষ উদ্দীপিত করে এবং রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে আপনার যৌন ইচ্ছা বৃদ্ধি পায়। আপনি কফির সাথে মিশিয়ে জয়ফল খেতে পারেন, তাহলে দুইটির কাজ একত্রে পাওয়া সম্ভব।চকলেট: ভালোবাসা ও যৌনতার সঙ্গে সবসময়ই চকলেটের একটা সম্পর্ক রয়েছে। এতে রয়েছে ফেনিলেথিলামিন (পিইএ) ও সেরোটোনিন। এ দুটি পদার্থ আমাদের মস্তিষ্কেও রয়েছে। এগুলো যৌন উত্তেজনা ও দেহে শক্তির মাত্রা বাড়াতে সহায়ক। পিইএ’র সঙ্গে অ্যানান্ডামাইড মিলে অরগাজমে পৌঁছাতে সহায়তা করে।

কলা: কলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম মানবদেহের যৌনরস উৎপাদন বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ানও। যা শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতেও সহায়ক। আর সর্বোপরি কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ শর্করা যা আপনার দেহের শক্তি বৃদ্ধি করে। ফলে দীর্ঘসময় ধরে যৌন মিলনে লিপ্ত হলেও আপনার ক্লান্তি আসবে না।ভিটামিন সি জাতীয় ফল: যৌন স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চাইলে প্রতিদিন খাবার তালিকায় রঙিন ফলমূল রাখুন। আঙ্গুর, কমলা লেবু, তরমুজ, পিচ ইত্যাদি ফল যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী। গবেষণা দেখা গেছে, একজন পুরুষের প্রতিদিনের খাবার তালিকায় অন্তত ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকলে তার স্পার্মের কোয়ালিটি উন্নত হয়। এসব ফলে মধ্যে তরমুজের প্রভাব বেশি। অনেকে যৌন উদ্দীপক ওষুধ ভায়াগ্রার সাথে তরমুজের তুলনা করেছেন।

গরুর মাংস: গরুর মাংসে প্রচুর জিঙ্ক থাকে। তাই আপনি যৌন জীবনকে আরো আনন্দময় করতে কম ফ্যাটযুক্ত গরুর মাংস খান। যেমন গরুর কাঁধের মাংসে, রানের মাংসে কম ফ্যাট থাকে এবং জিঙ্ক বেশি থাকে। এইসব জায়গার মাংসে প্রতি ১০০ গ্রামে ১০ মিলিগ্রাম জিঙ্ক থাকে।

দাদার যে দু’টি কথা মন্ত্রীদের মেনে চলতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

দাদার যে দু’টি কথা মন্ত্রীদের মেনে চলতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

নতুন মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর সোমবার প্রথমবারের মতো নতুন মন্ত্রিপরিষদের সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দাদার দেওয়া দুটি উপদেশের কথা মন্ত্রীদেরকে স্মরণ করিয়ে দেন এবং তা মেনে চলার পরামর্শ দেন।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে আপনারা নিশ্চয়ই পড়েছেন- আমার দাদা তার ছেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বলেছিলেন, ‘যে কাজই করো না কেনো- সিনসিয়ারিটি অব পারপাস অ্যান্ড অনেস্টি অব পারপাস’। আমি মনে করি এই দু’টি কথা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

তাই এই নতুন মন্ত্রিপরিষদ যে কাজই করবে, এই দু’টি কথা মনে রাখবে। আপনারা নিষ্ঠা এবং সততার সঙ্গে কাজ করবেন। প্রতিটি কাজ নিষ্ঠার সঙ্গে করতে হবে। এ কথাটা মনে রাখতে হবে।তিনি বলেন, জনগণের প্রতি আমাদের দায়িত্ব রয়েছে। কর্তব্য রয়েছে। সে দায়িত্ব এবং কর্তব্য পালন করতে আমরা এখানে এসেছি। আর সততার সঙ্গে কাজ করলে সফল হবোই। সততার শক্তি অপরিসীম। সেটা আমরা বারবার প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি।

 

নারী আর পুরুষের অর্গাজম্ কি সমান? গবেষণা কী বলছে?

পুরুষ ও মহিলার যৌন আকাঙ্খা কি ভিন্ন প্রকৃতির? এনিয়ে প্রচুর প্রশ্ন রয়েছে অনেকের মনে। লজ্জার খাতিরে অনেকে প্রকাশ করতে পারে না। কিন্তু মনে প্রশ্ন রয়েই যায়। নারী যেভাবে শরীরী আদর উপভোগ করে, পুরুষও কি ঠিক তাই? নাকি তাদের চাহিদা অন্য? এনিয়ে একটি গবেষণা করা হয়েছিল। তাতে যে তথ্য প্রকাশ পেয়েছে তাতে কৌতূহল থেকে উঠে গিয়েছে পর্দা।

মানসিক সম্পর্কের সঙ্গেও ওতপ্রতভাবে জড়িত শারীরিক সম্পর্ক। মহিলাদের ক্ষেত্রে এটি সম্পূর্ণরূপে প্রযোজ্য। পুরুষরা যৌনতার সময় শুধু যৌনতার কথাই মাথায় রাখে। বিছানায় নারী শরীরই তাদের কাছে একমাত্র বিষয়। কিন্তু মহিলাদের মাথায় ঘোরে অনেক কিছু। শারীরিক ঘনিষ্ঠতার আগে মানসিক ঘনিষ্ঠতা তাদের কাছে বেশি জরুরি। সেটা যদি হয়, তবে বিছানায় মিলনে তাদের আপত্তি থাকে না। কিন্তু সেখানে তাদের মন জয় করা সহজ কথা নয়। নারীদের যৌনতৃপ্তি আনতে গেলে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয় পুরুষদের। এমনকী, ঠোঁটের ছোঁয়া থেকে আবেগাপ্লুতভাবে চুমু খাওয়া, সবেতেই লুকিয়ে থাকে নারীর স্যাটিসফ্যাকশন। আর পুরুষ সেখানে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শেষ পর্যায়ে পৌঁছতে চায়।

অনেকে বলে পর্নোগ্রাফি নাকি শুধু ছেলেদেরই উদ্দীপ্ত করে। কিন্তু একথা সম্পূর্ণ ভূল। পর্নোগ্রাফি দেখে যতটা উত্তেজিত হয় পুরুষ, ততটাই হয় মহিলারাও। পর্নোগ্রাফি দেখে নিজেদের উত্তেজনা প্রশমিত করে দেয় পুরুষরা। এর জন্য স্বমেহনের সাহায্য নেয় তারা। কিন্তু মহিলারা শারীরিক ঘনিষ্ঠতার দিকে নজর দেয় বেশি। এক্ষেত্রে বলা দরকার, শুধু মহিলাদের অর্গাজম্ কিন্তু শুধু শারীরিক ঘনিষ্ঠতার জন্যই আসে না। চোখের সামনে ঘনিষ্ঠ দৃশ্য ও মানসিক চাহিদা থেকেও অর্গাজম্ হয়।

জানেন, সুস্থ থাকতে সপ্তাহে কতবার বীর্যপাত করা উচিত?

জানেন, সুস্থ থাকতে সপ্তাহে কতবার বীর্যপাত করা উচিত?

ঠিকঠাক হচ্ছে তো? আরও কি হবে? রংটা হঠাৎ হলুদাভ কেন? গন্ধ কেন আঁশটে? শরীরী ক্ষরণের চরম উত্তেজনার মধ্যেই অজস্র প্রশ্ন মনের ভিতর ছটফট করে। কারও সঙ্গে আলোচনা করতে লজ্জা, সঙ্গিনীর সঙ্গে শেয়ার করতে কুণ্ঠা। ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া তো দূর কি বাত। মিলনের পর বীর্যপাত করে সুখ না পাওয়া তীব্র অস্বস্তিকর। কৈশোর থেকে প্রৌঢ়ত্বের দোরগোড়ার প্রায় সব পুরুষই কোনও না কোনও সময় বীর্যের বিচিত্র সমস্যায় উদ্বিগ্ন হন। সমস্যা সব সময় গুরু না হলেও গম্ভীর বটে। কারণ বীর্যপাত, শুক্রাণুর সমস্যা শুধু পিতৃত্বে বাধা দেয় না। সময়মতো সঠিক ক্ষরণ না হলে পুরুষ মানসিক ও শারীরিক অস্থিরতায় ভোগে। একইসঙ্গে বীর্যের লক্ষণ দেখে ধরা পড়ে বেশ কিছু অসুখও।

বস্তুটি আসলে কী? শরীর নিঃসৃত ধাতুটিতে থাকে প্রোটিন, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি১২, ক্যালসিয়াম, ক্লোরিন, জিঙ্ক, সাইট্রিক অ্যাসিড, ফ্রুকটোজ, ল্যাকটিক অ্যাসিড, ম্যাগনেশিয়াম, নাইট্রোজেন, ফসফরাস, পটাশিয়াম, সোডিয়াম। টেস্টিস, প্রস্টেট গ্রন্থি, সেমিনাল অ্যাসাইকল, বালবোইউরেথ্রাল গ্রন্থি থেকে বীর্য তৈরি হয়।

রং দেখে সাবধান: সুস্থ মানুষের বীর্যের রং সাদা। কখনও ধূসর-সাদা। তবে পঞ্চাশোর্ধ্বদের বীর্যের রং বয়সজনিত অনেক সময় হালকা হলদেটে হয়। তাতে চিন্তার কিছু নেই। অতিরিক্ত রসুন খেলেও রং হলদেটে হতে পারে। তবে বীর্যের রং রক্তাভ হলে সাবধান। এর অর্থ বীর্যের সঙ্গে রক্তপাত হচ্ছে। ডাক্তারি ভাষায় একে বলে হেমাটোস্পার্মিয়া। প্রস্টেটে বায়োপসি করলে সাধারণত বীর্যের সঙ্গে রক্ত বের হয়। এছাড়া পুরুষাঙ্গের টেস্টিস, প্রস্টেটের মতো গ্রন্থিগুলিতে টিউমার বা ইনফেকশন অথবা প্রস্রাবে ইনফেকশন হলেও বীর্যের সঙ্গে রক্ত আসতে পারে। ইনফেকশনের ক্ষেত্রে ইউরিন কালচার করে কারণ অনুসন্ধান করতে হয়।বাদামি রঙের বীর্যপাত ইকোলাই, টিবির লক্ষণ। আবার অনেক সময় ইনফেকশনের কারণে রক্ত জমে বাদামি হয়ে নিঃসৃত হয়। কয়েকজনের বীর্যের রং সবুজাভও হয়। তবে তা অত্যন্ত বিরল। ঠিক কী কারণে সবুজ হয় তা নিয়ে চিকিৎসক মহলে ধোঁয়াশা রয়েছে। অনুমান, কোনও খাবারের রঙের জন্য এমন বিচিত্র রং হতে পারে। বীর্যের রং অস্বাভাবিক হলে অবশ্যই অ্যান্ড্রোলজিস্ট বা ইউরোলজিস্টের কাছে যান। ওষুধের মাধ্যমে সমস্যা সেরে যায়।

কতটা স্বাভাবিক: সাধারণত মিলন বা হস্তমৈথুনের পর প্রথমবার ৩.৭ মিলিলিটার বীর্য ক্ষরিত হয়। কিছুক্ষণের মধ্যে পুনরায় করলে পরিমাণ কমে। অনেকে খুব তরল বীর্য দেখে চিন্তিত হয়ে পড়েন। ঘনঘন মিলনের ফলে বীর্যপাত করলে সাধারণত তা তরল হয়। এটা কোনও অসুখ নয়। বীর্য আসলে তরলই হয়। কিন্তু ক্ষরণের কিছুক্ষণের মধ্যেই তা ঈষৎ ঘন হতে থাকে। বীর্যে থাকা প্রোটিনের জন্য ঘন হয়। কিন্তু ২০ মিনিট থেকে আধ ঘণ্টার মধ্যে ফের প্রোটিন ভেঙে বীর্য জলের মতো তরল হয়ে যায়।

প্রস্রাবের সঙ্গে বীর্য: সমস্যাটির নাম রেট্রোগ্রেড ইজ্যাকিউলিশন। যখন স্পার্ম বা শুক্রাণু টেস্টিস থেকে বের হয় তখন মূত্রথলির মুখ বন্ধ থাকে। কিন্তু কারও কারও ক্ষেত্রে প্রস্টেট বা মূত্রথলিতে কোনও অপারেশন বা ওষুধের জন্য স্পার্ম বেরনোর সময় মূত্রথলির মুখ খোলা থাকে। এঁদের ক্ষেত্রে স্পার্ম মূত্রথলির দিকে চলে যায় এবং প্রস্রাবের সঙ্গে বীর্য বেরিয়ে যায়। এই সমস্যা নিয়েও তেমন চিন্তার কিছু নেই। তবে ডাক্তার দেখিয়ে নেওয়া ভাল। কখনও ইউরিন ইনফেকশন হলে প্রস্রাবের সঙ্গে পুঁজের মতো কিছু বের হয়। অনেকে এই পুঁজের মতো অংশকে বীর্য ভেবে উদ্বিগ্ন হন।

প্রস্টেট নেই, বীর্য নেই: প্রস্টেট অপারেশনে প্রস্টেট বাদ গেলে বীর্য ক্ষরণ হয় না। কারণ, বীর্য যে পথে এসে পুরুষাঙ্গ দিয়ে বের হয় সেই পথ প্রস্টেট গ্রন্থির একটা অংশ। তবে টেস্টিকেলস না থাকলেও বীর্যপাত সম্ভব। সেক্ষেত্রে বীর্যে শুক্রাণু উপস্থিত থাকবে না।সময় জরুরি: মিলনের কতক্ষণের মধ্যে বীর্যপাত হওয়া স্বাভাবিক তা নিয়ে অনেকের মনে প্রশ্ন থাকে। অনেকে ভাবেন, আধ ঘণ্টা না হলে সব ঠিকঠাক নেই। শীঘ্রপতনের আশঙ্কায় কুণ্ঠিত বোধ করেন। কিন্তু আসলে চরম মুহূর্তে পৌঁছনোর পর দু’ থেকে সাত মিনিটে বীর্যপাত হওয়া স্বাভাবিক। এর চেয়ে কম সময়ের মধ্যে বীর্যপাত হলে তাকে বলে প্রিম্যাচিওর ইজ্যাকিউলেশন। এটা একটা অসুখ। কোলেস্টেরল, সেক্স হরমোনের সমস্যা বা অতিরিক্ত ধূমপানের নেশা থেকে এই সমস্যা হতে পারে। বিশিষ্ট ডাক্তারের কাছে এর চিকিৎসা জরুরি। সাধারণত একটু বয়স্কদের এমন প্রিম্যাচিওর ইজ্যাকিউলেশন হয়। তাই ওষুধ দিয়ে তাঁদের যৌন ক্ষমতা বাড়ানোর আগে হার্ট, প্রেশার ঠিক আছে কি না তা চেক করে নেওয়া উচিত।

সুস্থ থাকতে সপ্তাহে কতবার বীর্যপাত করা উচিত? বহু পুরুষের মনেই এই প্রশ্ন জাগে। সহবাস বা মৈথুনের মাধ্যমে প্রতিদিনই করতে পারেন। তবে সপ্তাহে একদিন করার তুলনায় যাঁরা রোজ বা তিন-চারদিন করেন তাঁদের শরীর বেশি ভাল থাকে। ২০ বছরের পরেই সহবাস শুরু করলে ৪০-৪৫ বছর বয়সের পর যৌন চাহিদা বা বীর্যপাত কমতে থাকে। ৩০-এর পর থেকে যাঁরা সহবাস করেন তাঁদের ক্ষমতা আরও বেশি বয়স পর্যন্ত হয়। তবে বীর্যপাতের সঙ্গে বয়সের তেমন কোনও সম্পর্ক নেই।

গন্ধে কষ্ট: কারও কারও বীর্যে আঁশটে গন্ধ ছাড়ে। দীর্ঘদিন এমন হলে ডাক্তারের পরামর্শমতো কিছু অ্যান্টিবায়োটিক খেতে হবে।ত্বকের জন্য ভাল: বীর্যে এমন কিছু উপাদান থাকে যা ত্বকের জন্য ভাল। অ্যাকনে, ডার্ক সার্কল, ত্বক মসৃণ করতে বীর্য থেকে তৈরি ক্রিমের ব্যবহার ভাল। সরাসরি লাগালেও উপকার।মান ভাল রাখতে: সুস্থ সন্তানের জন্ম দিতে চাইলে স্পার্মের মান ভাল রাখা জরুরি। তাই বেশি করে সবুজ শাক—সবজি, কলা, রসুন খান। নিয়মিত শরীরচর্চা করে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

পুরুষরা সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা

পুরুষরা সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা

শরীরের বিভিন্ন পুষ্টি পূরণে আমরা প্রতিদিনই অনেক ধরনের খাবার খেয়ে থাকি কিন্তু সবাই জানি কি কোন ধরনের খাবার আমাদের শারিরীক উত্তেজনা বাড়াতে সক্ষম? সাধারণত খাবারে ভিটামিন এবং মিনারেলের ভারসাম্য ঠিক থাকলে শরীরে এন্ড্রোক্রাইন সিস্টেম সক্রিয় থাকে।

আর তা আপনার শরীরে এস্ট্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরনের তৈরি হওয়া নিয়ন্ত্রণ করে। এস্ট্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরন সেক্সের ইচ্ছা এবং পারফরমেন্সের জন্য জরুরি।আপনি যৌন মিলনের মুডে আছেন কিনা তা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করে আপনার খাদ্য। আসুন জেনে নিই এমন কয়েকটি দৈনন্দিন খাদ্য সম্পর্কে যা আপনার শরীরে শারিরীক উত্তেজনার পাওয়ার বাড়ায় বহুগুণ।

বেশি পরিমাণ প্রাণিজ-ফ্যাট আছে এ ধরনের প্রাকৃতিক খাদ্য আপনার শারিরীক উত্তেজনা জীবনের উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চায়।আপনার শারিরীক উত্তেজনা আনন্দময় করে তুলতে ঝিনুক খাদ্য হিসেবে খুবই কার্যকরী। ঝিনুকে খুব বেশি পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। জিঙ্ক শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি করে এবং লিবিডো বা শারিরীক উত্তেজনা-ইচ্ছা

এই খাবারেগুলো খেলে ছেলেদের বীর্যের পরিমান বেশি হয়, তা কি জানেন

বীর্যের পরিমান – পুরুষের একটি প্রধান সমস্যা হল তার বীর্যের গুণগত মান। গুণগত মান ঠিক থাকলে সে যত চেষ্টায় করুক না কেন তার থেকে ভাল সুস্থ সবল সন্তান আশা করা যায় না। পুরুষের বীর্যের মান কিভাবে বাড়ানো যায় এজন্য অনেকেই ইন্টারনেট এ সার্চ করে থাকেন। কিন্তু বাংলাতে বীর্যের মান উন্নত করে এমন লেখা খুব এ কম।পুরুষ বন্ধ্যাত্বের মধ্যে ৯০ শতাংশ দায়ী অনুন্নত বীর্য বা স্বল্প পরিমান বীর্য। আর প্রতি ২৫ জন একজন পুরুষ এর শিকার হন। বাইরের খাবার, বিশ্রামের অভাব, খাবারের ভেজাল, ধূমপান ও মদ্যপান ইত্যাদি নানান কারণে পুরুষের স্পার্মের গুনাগুণ কমে গেছে অনেকটাই।তাই আগের তুলনায় পুরুষের বন্ধ্যাত্বের হারও বাড়ছে। কোমল পানীয়ের প্রতি অতিরিক্ত আসক্তিও স্পার্মের গুনাগুণ নষ্ট হওয়ার অন্যতম একটি কারণ।

স্পার্মের পরিমাণ বৃদ্ধি করতে এবং এর গুনাগুণ বাড়িয়ে তুলতে দরকার সঠিক খাদ্যাভ্যাস ও সচেতনতা।আসুন দেখে নেয়া যাক স্পার্মের গুনাগুণ বাড়ায় এমন ৬টি খাবারের তালিকা।ডার্ক চকোলেট: চকোলেট ভালোবাসেন? তাহলে আপনার জন্য সুখবর হলো ডার্ক চকোলেট স্পার্মের পরিমাণ বাড়ায় এবং গুনাগুণ বৃদ্ধি করে। ডার্ক চকোলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে যা যৌন উদ্দিপনা বৃদ্ধি করতে ভুমিকা রাখে। এছাড়াও ডার্ক চকোলেটে আছে L-Arginine HCL ও অ্যামিনো এসিড। এই উপাদানগুলো স্পার্মের সংখ্যা এবং পরিমাণ বৃদ্ধি করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে যে সব পুরুষ নিয়মিত অল্প করে হলেও ডার্ক চকোলেট খায় তাদের যৌন ক্ষমতা অন্যদের তুলনায় বেশি।

কলা: কলা স্পার্মের পরিমাণ উল্ল্যেখযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি করে। কলায় বোমেনাইল নামের বিশেষ এক ধরণের এঞ্জাইম আছে যা যৌন উদ্দিপক হরমোন গুলোকে নিয়ন্ত্রণ করে। এছাড়াও কলায় ভিটামিন বি১, ভিটামিন এ ও ভিটামিন সি আছে যেগুলো শরীরের শক্তি বাড়ায় এবং স্পার্ম উৎপাদন বাড়াতে সহায়তা করে।গরুর মাংস: কি অবাক হচ্ছেন? গরুর মাংসে আছে প্রচুর পরিমাণে জিংক। জিংক যৌন উদ্দীপনা কমানোর জন্য দায়ী টেস্টোস্টেরন কে এস্ট্রোজনে রূপান্তরিত করতে বাঁধা দেয়।

ফলে যৌন ক্ষমতা হ্রাস পাওয়ার ঝুঁকির থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। তাছাড়াও গরুর মাংসে প্রচুর প্রোটিন আছে যা স্পার্মের পরিমাণ ও গুন বৃদ্ধি করে।তেল যুক্ত মাছ: হিউমান রিপ্রোডাকশনের একটি গবেষনায় জানা গেছে যে তৈলাক্ত মাছ স্পার্মের গুন বাড়াতে সহায়ক। তৈলাক্ত মাছে আছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড। গবেষনায় যারা ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড যুক্ত মাছ খেয়েছে তাদের স্পার্মের গুনাগুণ ও পরিমাণ যারা খায়নি তাদের তুলনায় বেশি। ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিডের DHA ও EPA ডোপামিনের উৎপাদন বাড়িয়ে দেয় এবং মস্তিকে যৌন উদ্দীপনার অনুভুতি জাগাতে সহায়তা করে।

রসুন: যারা বাবা হতে চাইছেন তাদের জন্য রসুন একটি আদর্শ খাবার। রসুনে আছে সেলেনিয়াম নামক একটি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা স্পার্মের সক্রিয়তা বাড়ায়। এছাড়াও রসুনে আরো আছে আলিকিন যা যৌনাঙ্গের রক্তচলাচল বৃদ্ধি করে উদ্দিপনা সৃষ্টি করে এবং স্পার্মের পরিমাণ বাড়ায়।

কালজিরা: কালোজিরা বা নাইজেলা সিডে ১৫টি অ্যামোইনো এসিড আছে। এছাড়াও কালোজিরায় ২১ শতাংশ প্রোটিন রয়েছে ও ৩৮ শতাংশ শর্করা আছে। নিয়মিত কালোজিরা সেবনে স্পার্ম সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং স্পার্মের গুনাগুণ বাড়ে।লেবু জাতীয় ফল: ভিটামিন সি এর মত এন্টিঅক্সিডেন যা সিরটাস বা লেবুজাতীয় ফলে প্রচুর পরিমানে বিদ্যমান পুরুষের বীর্যের মান উন্নত করে। লেবু, আঙ্গুরের জুস এক্ষেত্রে খুবই কার্যকর।

সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা

সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা

সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা,শুনুন ডাক্তারের কাছ থেকেই।শরীরের বিভিন্ন পুষ্টি পূরণে আমরা প্রতিদিনই অনেক ধরনের খাবার খেয়ে থাকি কিন্তু সবাই জানি কি কোন ধরনের খাবার আমাদের সেক্স বাড়াতে সক্ষম? সাধারণত খাবারে ভিটামিন এবং মিনারেলের ভারসাম্য ঠিক থাকলে শরীরে এন্ড্রোক্রাইন সিস্টেম সক্রিয় থাকে।আর তা আপনার শরীরে এস্ট্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরনের তৈরি হওয়া নিয়ন্ত্রণ করে। এস্ট্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরন সেক্সের ইচ্ছা এবং পারফরমেন্সের জন্য জরুরি।আপনি যৌন মিলনের মুডে আছেন কিনা তা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করে আপনার খাদ্য। আসুন জেনে নিই এমন কয়েকটি দৈনন্দিন খাদ্য সম্পর্কে যা আপনার শরীরে সেক্স পাওয়ার বাড়ায় বহুগুণ।জেনে নিন:

দুধ : বেশি পরিমাণ প্রাণিজ-ফ্যাট আছে এ ধরনের প্রাকৃতিক খাদ্য আপনার যৌনজীবনের উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি।বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চায়।কিন্তু আপনি যদি শরীরে সেক্স হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সগুলিকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।ঝিনুক : আপনার যৌনজীবন আনন্দময় করে তুলতে ঝিনুক খাদ্য হিসেবে খুবই কার্যকরী।

ঝিনুকে খুব বেশি পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। জিঙ্ক শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি করে এবং লিবিডো বা যৌন-ইচ্ছা বাড়ায়। ঝিনুক কাঁচা বা রান্না করে যে অবস্থাতেই খাওয়া হোক, ঝিনুক যৌনজীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা,শুনুন ডাক্তারের কাছ থেকেই।সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা,শুনুন ডাক্তারের কাছ থেকেই।

সহবাসের ২০ মিনিট আগে যে দুটি খাবার খেলে থাকতে পারবেন ঘন্টার পর ঘন্টা,শুনুন ডাক্তারের কাছ থেকেই।শরীরের বিভিন্ন পুষ্টি পূরণে আমরা প্রতিদিনই অনেক ধরনের খাবার খেয়ে থাকি কিন্তু সবাই জানি কি কোন ধরনের খাবার আমাদের সেক্স বাড়াতে সক্ষম? সাধারণত খাবারে ভিটামিন এবং মিনারেলের ভারসাম্য ঠিক থাকলে শরীরে এন্ড্রোক্রাইন সিস্টেম সক্রিয় থাকে।আর তা আপনার শরীরে এস্ট্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরনের তৈরি হওয়া নিয়ন্ত্রণ করে। এস্ট্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরন সেক্সের ইচ্ছা এবং পারফরমেন্সের জন্য জরুরি।আপনি যৌন মিলনের মুডে আছেন কিনা তা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করে আপনার খাদ্য। আসুন জেনে নিই এমন কয়েকটি দৈনন্দিন খাদ্য সম্পর্কে যা আপনার শরীরে সেক্স পাওয়ার বাড়ায় বহুগুণ।

স্ত্রীর এই ছবিটি দেখা মাত্রই স্বামী ডিভোর্স দেন তাকে, কেন ? ছবিটি ভালোভাবে দেখলেই বুঝবেন…

স্ত্রীর এই ছবিটি দেখা মাত্রই স্বামী ডিভোর্স দেন তাকে, কেন ? ছবিটি ভালোভাবে দেখলেই বুঝবেন…

প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :   এই ছবিটি দেখা মাত্রই স্বামী- একজন স্বামী যখন তার হাসিমুখ ওলা স্ত্রীর ছবি তোলেন, তখন সবাই মনে করে ইন্টারনেটে এটি সবচেয়ে সুন্দর জিনিস। একজন স্ত্রী তার স্বামীর জন্য হাসছেন । স্বামী ২০ দিন সময় পর তার প্রেমময় স্ত্রী কাছে বাড়িতে ফিরে আসেন, তাহলে একবার কল্পনা করুন যে সে এতদিন পর স্ব-শরীরে তার স্বামীকে দেখবে !কিন্তু সত্য এটা নয় যা মনে করা হচ্ছে

 

 

সত্য এবং কল্পনা একে অপরের থেকে পোলার বিপরীতে এবং আমরা পাশাপাশি পার্শ্ব তুলনা যখন করবো তখন তাদের পার্থক্য দেখতে পাবেন । কিন্তু এই ক্ষেত্র সবসময় হয় না।কাছ থেকে একবার পরীক্ষা করুন !কাছ থেকে ছবি পরীক্ষা করলে সত্য উদ্ঘাটন হবে। আমরা এই ছবিটির উপর থেকে পর্দা সরানোর আগে, দয়া করে এটির উপর কোনো অযৌক্তিক বিবরণ সন্ধান করবেন না। ঠিক আছে ? পরবর্তী দেখুন !ছবিটিতে কি দেখছেন

কাছ থেকে ছবি পরীক্ষা করলে সত্য উদ্ঘাটন হবে। আমরা এই ছবিটির উপর থেকে পর্দা সরানোর আগে, দয়া করে এটির উপর কোনো অযৌক্তিক বিবরণ সন্ধান করবেন না। ঠিক আছে ? পরবর্তী দেখুন !ছবিটিতে কি দেখছেন আমরা দেখছি একটা সুন্দর মেয়ে তার বিছানায় সাধারন পোশাক পরে এবং বিশ্রাম অবস্থায় বসে আছে । তার চারপাশে ঘিরে চশমা, বালিশ, একটি বড় বিপজ্জনক কাছাকাছি ঘেঁষে আসা ফ্যান এবং তার স্মার্টফোন যা একটি চার্জারের সাথে সংযুক্ত করা আছে ।এতদূর পর্যন্ত অস্পষ্ট কিছুই না ?মনে হয় মেয়েটি গ্রীষ্মের তাপ দ্বারা ভয়ঙ্করভাবে প্রভাবিত হয়েছে এবং ঠান্ডা থাকার জন্য তার মুখের সামনে ফ্যান টা নিয়ে এসেছে, আমরা খুব ভয়ানক কিছু দেখছি না। বিশাল ফ্যানটি মনে হচ্ছে প্রান্তের খুব কাছাকাছি । কিন্তু এটা কি ঠিক ? ভুল।ঠিক আছে তা আপনি এটা লক্ষ্য করেছেন

ঠিক আছে আমরা আপনার জন্য জিনিসগুলিকে আরও সহজ করে তুলছি । ছবির অর্ধেক ডান দিকটি লক্ষ্য করুন। ছবিটির ডান দিকে প্রতিটি একক পিক্সেলের তথ্যগুলির গুরুত্বপূর্ণ বিট রয়েছে যা আপনাকে অবাক করবে। কিন্তু আমরা এক্ষুনি সত্য প্রকাশ করতে চাই না!আশ্চর্যজনক ছবিটি দেখায় আপনার চোখে পড়ার মত একজন মানুষ তার পিছনে লুকিয়েআমরা কখনো দেখেছি সবচেয়ে ভয়ানক, বিরক্তিকর, অক্ষম, বিস্ময়কর জিনিস। একটি নিখুঁত ছবি যা একটি মারাত্মক চমৎকার ছিল আমাদের খুব বিস্মিত করেছে! নীচের ডান দিকের কোণায় একটি মানুষ তার পিছনে লুকিয়ে !
কেন আপনি তাকে লক্ষ্য করতে পারেননি

আমরাও পারব না, স্বামী নিজেই ফেসবুক বন্ধুদের এই কৌতুক প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেছেন। কোন এক ছবির সাথে অপ্রীতিকর কিছু যুক্তি যোগ হতে পারে তাই কয়েক দিন পরে তিনি গোপন তথ্যটি নিজেই প্রকাশ করেন ।চোর এর জন্য কাজের মিশ্রণআসল কারন হলো আমরা এটা বুঝতে পারিনি কারন কাঠের রং এর সাথে মুখটি মিশে গেছে ।

 

 

বীর্য বেশিক্ষণ ধরে রাখার উপায়

বীর্য বেশিক্ষণ ধরে রাখার উপায়

১০মিনিটের মাথায় বীর্যপাত হয়, সেটি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক । একে দ্রুত বীর্যপাত বলা যাবে না । এমনকি ৬-৭ মিনিট ও স্বাভাবিক বলা হয় । আপনি তখনি আপনার এ বিষয় টি নিয়ে চিন্তা করবেন যখন আপনার তার থেকেও কম অর্থাত্‍ ১-৫ মিনিটে বের হয়ে যাবে । কেবল তখনি আপনি বলতে পারবেন যে আপনার এ সমস্যা অর্থাত্‍ দ্রুত বের হয়ে যাচ্ছে। দাম্পত্য জীবনে অসুখী পুরুষের আজকাল অভাব নাই। বর্তমানে অনেক পুরুষ মিলনে স্থায়ী করতে পারেন না। বহু কারণ থাকতে পারে এর পিছনে। যৌন মিলন নিয়ে যারা মানসিক ভাবে দুর্বলতায় ভুগেন তাদের জন্য আজ কিছু টিপস দিচ্ছি আশাকরি আপনার যৌন জীবনের জন্য টিপসগুলো অদ্বিতীয়।

প্রথম প্রথম সব মানুষের ক্ষেত্রেই অনভিজ্ঞতা, লজ্জা, নিজের উত্তেজনা কে নিয়ন্ত্রন করতে না পারা ইত্যাদির কারনে এমন টা হতে পারে। চিন্তার কিছু নেই। সময় নিন, তাড়াহুড়া করে মিলিত হবেন না। এই মুহূর্তে আপনার চিকিত্‍সকের কাছে যাবার প্রয়োজন নেই বলেই মনে হয়। বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দেখে বিভ্রান্ত হবেন না।আপনার যে সমস্যা, সেটা খুবি স্বাভাবিক। চিন্তার কোন কারণ নেই । মূল আলোচনার আগে আর একটি প্রচলিত ধারণার কথা বলা যাক ।অনেক মানুষ ই আছেন যারা মনে করেন তার অধিকাংশ সমস্যার কারণ মাস্টারবেশন । এটি ভুল ধারণা ।মাস্টারবেশন বা হস্তমৈথুন সম্পুর্ণ স্বাভাবিক একটি ব্যপার । অতিরিক্ত না করলে এতে আপনার কোন দিক দিয়েই কোন ক্ষতি হবার চান্স নেই ।এই কথাটি বলার কারণ খুব ই সরল । কারণ অনেকেই মনে করে তার দ্রুত বীর্যপাতের আসল কারণ সে অনেক মাস্টারবেট করে । এখানে একটি থিওরি আছে ।

বোঝানোর চেষ্টা করছি । ধরুণ আপনি বাথরুমে গেলেন মাস্টারবেশন করতে । আপনি যসি ২০ মিনিট ধরে করেন তাহলে অবশ্যই কেউ ডাকাডাকি হবে , না হলেও আপনার অবচেতন মন ই আপনাকে তাড়া দেবে । এজন্য যা হয় তা হল , অবচেতন ভাবেই ছেলেরা মাস্টারবেট করতে করতে দ্রুত কিভাবে বের করা যায় সেটা শিখে ফেলে ।

পরে সেক্স করার সময় মনের অজান্তেই হয়তো পেনিসের তার সেই স্পেশাল জায়গা অথবা তার সে বিশেষ স্টাইল সে ধরে ফেলে , ফলে তাড়াতাড়ি বের হয়ে যায় । এখন , যাদের আসলেই দ্রুত বের হয়ে যায় তারা কি করবেন ? কারণ অবশ্যই , আপনার গার্লফ্রেন্ড বা ওয়াইফ আপনার পেনিস মুখে নিল , আর আপনার বের হয়ে গেল কিছু করার আগেই , অথবা ধরলো আপনার পেনিস , সাথে সাথে বের হয়ে গেল , অথবা আপনার গার্লফ্রেন্ড বা পার্টনার হয়তো উত্তেজক কিছু করলো আপনার সাথে , তখনি বের হয়ে গেল । এগুলো হল সমস্যা।

সলিউশনে যাই এবার আমরা ।একটি ব্যপার স্বাভাবিক । ধরুন আপনি অনেকদিন করেন না , আপনার পার্টনারের সাথে অনেকদিন পর করতে গিয়ে উত্তেজনায় দ্রুত বের হয়ে আসলো স্পার্ম । এটি স্বাভাবিক , এতে ঘাবড়ানোর কিছু নেই । এটি আপনার অক্ষমতা নয় ।

এবার আসুন দেখি যাদের দ্রুত বের হয়ে যায় তারা কি কি করতে পারেন . -শরীর টাকে আপনার পার্টনারের শরীরের উপরে সমান্তরালে রাখার চেস্টা করুন।শরীরের পুরো ভার আপনার পার্টনারের উপর দিয়ে দিন।ওই অবস্থাতেই খুব রিলাক্স ভাবে আপ ডাউন করুন।মনে রাখবেন যদি শরীর আলগা করে আপ ডাউন করতে যান তবেই কিন্তু আউট হয়ে যাবে। – হাতের ওপর জোর বাড়ানো । অনেক সময় দেখা যায় ছেলেরা করার সময় সব বা প্রায় সব ভর পেনিস এই দিয়ে থাকে , এতে দ্রুত বের হয়ে যেতে পারে তাই হাতে জোর বাড়াতে হবে ।

* মিলনের আগে অবশ্যই মন শান্ত রাখতে হবে, কোনভাবে নিজেকে উত্তেজিত কার যাবে না।মনে আজেবাজে চিন্তা আনা যাবে না।মেরে রাখবেন যৌন মিলন ক্ষণস্থঅয়ী হওয়ার মূল কারণ শারীরিক ও মানসিক দিন দিয়ে অস্থিরতা অনুভব করা। যোনী * সকল প্রকার মানসিক, শারিরীক অস্থিরতা বা চাপ কমিয়ে নিজেকে সহজ করুন। – এক পজিশনে বেশিক্ষণ না করে পজিশন বদলে বদলে করতে হবে । – একটি পদ্ধতি হল একবার বের করে দেয়া ।

আপনি আপনার স্পার্ম পার্টনার কে দেখিয়ে তার গায়ে অথবা অন্য কোথাও সেক্স এর আগেই বের করুন একবার। সে হর্নি হবে দেখে । এবার পেনিস টা ভালমত পানি দিয়ে ধুন । এবার ২মিনিট ব্রেক এর পর আস্তে আস্তে আবার কিসিং শুরু করুন ।

১৫মিনিটের মাথায় আবার ঢুকাতে সক্ষম হবার কথা । * কনডম ব্যবহার করবেন। কারণ কনডম ব্যবহার করলে বীর্যপাত দেরিতে হয়।কনডম ইউজ করলে পুরুষাঙ্গে শির শির ভাব কম হয়, যার কারণে বীর্যপাত হতে দেরি হয়। *যেকোন প্রকার নেশাজাত দ্রব্য পরিহার বাধ্যতামূলক।অনেকদিন যাবত্‍ য্যেন ক্ষমতা ধরে রাখার জন্য এবং যৌন মিলন দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য তামাকজাত দ্রব্য, মদ, অণ্রান নেশাজাত ওষুধ সম্পূর্ণরূপে বর্জন করতে হবে। – ঢোকানো অবস্থায় যদি আপনার মনে হয় যে এখনি বের হয়ে আসছে তখন আর সোজা ধাক্কা না দিয়ে ঘোরানো শুরু করুন । হাত দিয়ে পেনিস ধরবেন না । * যৌন মিরনের কক্ষেত্রে অবশ্যই ফোর প্লে পদ্ধতি অনুসরণ করবেন।প্রয়োজনে বেশি সময় নিয়ে ফোর প্লে করবেন।

* বেশিক্ষণ এক আসণে যৌন মিলন করবেন না। ঘন ঘন আসন পরিবরর্তন করুন।নতুনত্ব যেমন মনোযোগ রোমাঞ্চিত করবে তেমনি মিলন দীর্ঘস্থায়ী করবে।তবে সঙ্গীর দিকে অবশ্যই নজর দিতে হবে। দ্রুত বীর্যপাত – একটি অভ্যাস প্র্যাকটিস করুন বাসায় । নিজে কে উত্তেজিত করে বের হওয়ার ঠিক আগ মুহূর্ত পর্যন্ত নিয়ে যান , এর পর আবার স্বাভাবিক হোন বের না করে ।

এটি সপ্তাহে একবারের বেশি না করাই ভাল কারণ এতে দেহের ক্ষতি হতে পারে । * যৌন মিলনকালে সঙ্গীর আধিপত্যে কখনো লজ্জাবোধ করবেন না। * যৌন মিলন দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য শ্বাসপ্রশ্বাস ধীরে ধীরে নিন।এত করে আপনার পরিশ্রম কম হবে।যার জন্য আপনার শরীর দীর্ঘক্ষণযৌন মিলনের জন্য অটুট থাকবে।