জিভের রং দেখে বুঝে নিন, শরীরে কোন কোন রোগ বাস বেঁধেছে

আপনি সুস্থ না অজান্তেই শরীরে কোনও রোগ বাসা বেঁধেছে? বুঝে যান জিভের রঙ দেখে! জিভের স্বাভাবিক রং হালকা গোলাাপি। চিকিৎসকেরা বলেন, জিভের রংয়ের তারতম্যে ধরা যায় শরীর সুস্থ নাকি অসুস্থ!

সাদা: জিভের রং যদি সাদা মানে, আপনার ডিহাইড্রেশন হয়েছে। তবে জিভের উপরে যদি মোটা সাদা আস্তরণ পরে, তা ‘লিউকোপ্লাকিয়া’র লক্ষণ, যার কারণ ধূমপান।

ফ্যাকাসে: পুষ্টিহীনতায় ভুগলে জিভের রং ফ্যাকাসে হয়ে যায়।

কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

হলুদ: হজমে কিংবা যকৃত বা পাকস্থলিতে সমস্যা দেখা দিলে জিভের উপর হলুদ রংয়ের আস্তরণ পড়ে। অনেকসময়ে, নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ সেবন কিংবা মুখগহ্বরে পরিচ্ছন্নতার অভাবেও জিভে হলুদ আস্তরণ পড়তে পারে।

বাদামি: প্রচুর কফি খেলে বা অতিরিক্ত ধূমপানের কারণে জিভের রং বাদামি হয়ে যায়। কালো: যাঁরা অতিরিক্ত ধুমপান করেন, তাঁদের জিভে ব্যাকটিরিয়া জমে কালো হয়ে যেতে পারে, এমনকি জিভে চুলও গজাতে পারে।

লাল: ‘ফলিক অ্যাসিড’ কিংবা ‘ভিটামিন বি ১২’-এর অভাবে জিভ লাল হয়ে যায়। কাছ থেকে দেখলে জিভে মানচিত্রের আদলে লাল দাগ দেখা যায়, একে বলে ‘জিওগ্রাফিক টাং’।

নীল: হৃদযন্ত্রের সমস্যায় জিভের রং নীল কিংবা বেগুনি হয়ে যায়। অর্থাৎ, আপনার হৃদযন্ত্র পর্যাপ্ত রক্ত সরবরাহ করছে না অথবা রক্তে অক্সিজেনে অভাব দেখা দিয়েছে।
হৃদযন্ত্রের সমস্যায় জিভের রং নীল কিংবা বেগুনি হয়ে যায়। অর্থাৎ, আপনার হৃদযন্ত্র পর্যাপ্ত রক্ত সরবরাহ করছে না অথবা রক্তে অক্সিজেনে অভাব দেখা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *